Home / দেশের খবর / জিনের বাদশা নিয়ে গেল দেড় লাখ টাকা, বিনিময়ে দিয়ে গেল পিতলের মূর্তি!

জিনের বাদশা নিয়ে গেল দেড় লাখ টাকা, বিনিময়ে দিয়ে গেল পিতলের মূর্তি!

চুয়াডাঙ্গায় কথিত জি’নের বাদশার প্র’তা’রণা’র ফাঁ’দে পা দিয়ে দেড় লাখ টাকা খু’ইয়ে’ছেন এক ভ্যানচালক। কয়েক দিন ধরে বিভিন্ন কৌশলে তার কাছ থেকে হা’তিয়ে নেয়া হয়েছে এসব টাকা। বুধবার দুপুরে তার কাছে জি’নের বাদশা আরও ৫০ হাজার টাকা দাবি করে। টাকা না দিলে ছেলের মুখে ‘র’ক্ত উঠে ‘মা’রা যাবে বলে ভ’য় দেখায় ওই জিনের বাদশা।

 

কো’টিপ’তি হওয়ার স্বপ্নে বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে ধা’র-দে’না করে দেড় লাখ টাকা খু’ইয়ে দি’শেহা’রা হয়ে পড়েছেন ভ্যানচালক আবদুল জলিল। তিনি চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার দোস্ত গ্রামের খলিলুর রহমানের ছেলে। পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, জি’নের বাদশা পরিচয় দিয়ে কয়েক দিন আগে ভ্যানচালক জলিলের মোবাইলে কল দেয় প্র’তার’ক।

 

রা’তারা’তি কো’টিপ’তি করে দেয়ার স্বপ্ন দেখায় সে। জলিল সরল মনে সব বিশ্বাস করে। কয়েক দফায় বিকাশের মাধ্যমে দেড় লা’খ টাকা দেন জলিল। বিনিময়ে জলিলকে বগুড়ায় নিয়ে একটি ছোট্ট মূর্তি দিয়ে বলা হয় এটি স্বর্ণের মূর্তি। পরবর্তীতে প্র’তা’রক জানায়, ঘরের মেঝে খুঁ’ড়’লে আরও এক হাঁড়ি স্বর্ণের টাকা পাবে। পরে মূর্তিটি পরীক্ষা করে জলিল জানতে পারেন এটি পিতলের। ঘরের মেঝে খুঁ’ড়েও কোনো টাকার হাঁড়ি না পেয়ে দি’শেহা’রা হয়ে পড়েন জলিল।

 

বুধবার বেলা ১১টার দিকে দর্শনা থানায় গিয়ে কথিত জিনের বাদশার বি’রু’দ্ধে অ’ভিযো’গ করেন তিনি। বুধবারও জলিলের কাছে মোবাইল ফোনে ওই জিনের বাদশা আরও ৫০ হাজার টাকা দাবি করে। না দিলে তার ছেলের মুখে ‘র’ক্ত উঠে ‘মা’রা যাবে বলে হু”ম’কি দেয়। এ ব্যাপারে দর্শনা থানার ওসি মাহবুবুর রহমান কাজল বলেন, প্র’তা’রণা’র শি’কা’র জলিল থা’নায় অ’ভিযো’গ করেছেন। আমরা প্র’তার’ক’কে ধরতে পুলিশি জা’ল বিস্তার করেছি।

About বিডি রাইট প্রতিবেদক

Check Also

টাঙ্গাইলের গ্রামে অদ্ভুত নারী, মাটি-বালু পড়া নিতে ভিড়!

গ্রামে হঠাৎ দেখা ও মু’খোশ পড়া অ’দ্ভু’ত এক নারীর কাছ থেকে বালু পড়া নিতে ভি’ড় …

Leave a Reply