যুক্তরাষ্ট্রের নতুন ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস ডঃ কামালের ছাত্রীযুক্তরাষ্ট্রের নতুন ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস ডঃ কামালের ছাত্রী – বিডি রাইট
শিরোনামঃ
বৌভাতের দিন বরের মৃত্যু, স্বামীর মৃত্যুর খবর পেয়ে হাসপাতালে নববধূ অপশক্তি মোকাবেলা করে ইসলামের বিজয় নিশ্চিত করতে হবে: মামুনুল হক আমার সম্পর্ক বা বিয়ে নিয়ে একটা কথাও বলব না: শ্রাবন্তী মারা যাওয়ার পর গলায় ব্যান্ডেজ বেঁধে মেকআপ করে ফিরে এলো জবা ভ্যানচালক শিশু শম্পার পরিবারের সব দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রী বোরকা পরা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর: ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী প্রেমের বিয়ের ৭ মাস পর লাশ হলেন স্ত্রী, পালিয়ে গেছেন স্বামী যে কারনে জীবন দিল জান্নাতুল হাসিন মামুনুল হক ও বাবুনগরীকে গ্রেফতারের দাবি জানালেন মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী রাতে ঢাকা থেকে বাড়ি ফিরেই ঘুম, সকালে উঠে ৯ তলা থেকে লাফ!
যুক্তরাষ্ট্রের নতুন ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস ডঃ কামালের ছাত্রী

যুক্তরাষ্ট্রের নতুন ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস ডঃ কামালের ছাত্রী

মা’র্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন কমলা হ্যারিস। নানা কারণে কমলা হ্যারিসকে নিয়ে তুমুল আলোচনা হচ্ছে বিশ্বব্যাপী।প্রথমত, তিনি প্রথম নারী ভাইস প্রেসিডেন্ট হয়েছে মা’র্কিন যু’ক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে। দ্বিতীয়ত, তিনি ভা’রতীয় বংশোদ্ভূত আফ্রিকান এশীয় নারী হিসেবে সবচেয়ে উচ্চতর একটি রাষ্ট্রীয় পদ গ্রহণ করতে যাচ্ছেন।

 

তৃতীয়তঃ তিনি হবেন মা’র্কিন ইতিহাসে ভা’রতীয় বংশোদ্ভূত প্রথম নারী। যিনি এরকম একটি গুরুত্বপুর্ণ দ্বীতিয় সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় পদে অধিষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।কমলা হ্যারিসকে নিয়ে এখন নানামুখী আলোচনা এবং চর্চা হচ্ছে । আর এ সমস্ত আলোচনায় এবং চর্চার মধ্যে একটি বিষয হারিয়ে যাচ্ছে, তা হলো কমলা হ্যারিস ডঃ কামাল হোসেনের ছা’ত্রীও বটে। ডঃ কামাল হোসেন ১৯৮৫ সাল থেকে ১৯৯২ সাল পর্যন্ত ইউনিভা’র্সিটি ক্যালিফোর্নিয়ায় হস্টিং কলেজ অফ ল এর অ’তিথি শিক্ষক হিসেবে (ভিজিটিং প্রফেসর) দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

 

সেখানে তিনি বছরে একবার এক মাস সংবিধান, মানবাধিকার অধিকার এবং পেট্রোকেমিক্যাল আইনের ওপর পাঠদান করাতেন। কমলা হ্যারিস ১৯৮৭ সালে ইউনিভা’র্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়া হস্টিং ল কলেজের শিক্ষার্থী হিসেবে ভর্তি হন। কমলায় হ্যারিস হাওয়ার ইউনিভা’র্সিটি থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞান এবং অর্থনীতিতে ডিগ্রী অর্জন করেন ১৯৮৬ সালে। এরপর তিনি ইউনিভা’র্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়ায় যায় আইনের ওপর পড়াশোনা করতে। ইউনিভা’র্সিটি অফ ক্যালিফর্নিয়ায় লিগ্যাল এডুকেশন অ’পরচুনিটি প্রোগ্রাম (এলইপিও) এর আওতায় তিনি আইনের ওপর পড়াশোনা করেন।

 

কমলা হ্যারিসে যে সময় ইউনিভা’র্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়া শিক্ষার্থী হিসেবে ছিলেন, সেসময় ডঃ কামাল হোসেন ছিলেন ওই ইউনিভা’র্সিটির অ’তিথি শিক্ষক। আম’রা যদি কমলা হ্যারিসের বিশেষায়িত দিকগুলো দেখি, তাহলে দেখব যে তিনি মানবাধিকার বৈ’ষ’ম্য, আইনের শাসন বিষয়ে অধিকতর দক্ষতা অর্জন করেছেন।

 

তাই ডঃ কামাল হোসেন শিক্ষক হিসেবে একজন সফল ছা’ত্রী পেয়েছেন সেটি বলা যায়। ডঃ কামাল হোসেন একজন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন আইনজীবী হিসেবে শুধু বিশ্বে সমাদৃত নন বরং তিনি জাতিসংঘের আইন বিষয়ক উপদেষ্টারসহ অক্সফোর্ড ইউনিভা’র্সিটি, ইউনিভা’র্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়াসহ নয়টি বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে খন্ডকালীন অ’তিথি শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

 

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের একাধিক শিক্ষার্থী রয়েছে যারা এখন সরকারের গুরুত্বপূর্ণ পদ এবং দায়িত্ব পালন করছেন। ১৯৯২ সালের পর থেকে তিনি ইউনিভা’র্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়া আর দায়িত্ব পালন করেনি। কিন্তু তার দায়িত্ব পালন করার সময় কমলা হ্যারিস ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছিল ডঃ কামাল হোসেন আ’বেগা’প্লুত হয়ে পড়েন।

 

ডঃ কামাল হোসেন জানিয়েছেন যে, ওই সময় প্রচুর ভা’রতীয় এবং আফরিকান-আ’মেরিকানরা আইন বিষয়ে পড়াশোনা শুরু করে। তারা আইন পেশায় দক্ষতা অর্জন করে। ড. কামাল হোসেনের স্মৃ’তিতে কমলা হ্যারিস না থাকলেও বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসেব অনুযায়ী এবং যে সময় কমলা হ্যারিস ইউনিভর্সিটি অফ ক্যালিফর্নিয়া আইনের ওপর পড়াশুনা করেছেন। সে সময় ডঃ কামাল হোসেন ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের খন্ডকালীন শিক্ষক ছিলেন। তাই তাদের ছাত্র-শিক্ষক স’ম্পর্ক এখন নতুন করে ঝালাই হবে কিনা সেটাই দেখার বিষয়।

খবরটি শেয়ার করুন





© ২০২০ | বিডি রাইট কর্তৃক সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত
Design BY NewsTheme