মোট আক্রান্ত

১৮১,০৭৬

সুস্থ

৮৮,০৩৪

মৃত্যু

২,৩০৫

  • জেলা সমূহের তথ্য
  • চট্টগ্রাম ৯,৮৮৮
  • নারায়ণগঞ্জ ৫,৪২৪
  • কুমিল্লা ৪,১৬৭
  • গাজীপুর ৩,৭১৩
  • ঢাকা ৩,৩৯৭
  • বগুড়া ৩,৩০৭
  • সিলেট ২,৯৬৭
  • কক্সবাজার ২,৬১৩
  • ফরিদপুর ২,৪৪৪
  • খুলনা ২,৪৩৫
  • নোয়াখালী ২,৩৬২
  • মুন্সিগঞ্জ ২,৩৫২
  • ময়মনসিংহ ২,০৫২
  • বরিশাল ১,৬৮৬
  • কিশোরগঞ্জ ১,৬৭৭
  • নরসিংদী ১,৫৪৬
  • চাঁদপুর ১,১৮৭
  • ব্রাহ্মণবাড়িয়া ১,১৭৮
  • রাজশাহী ১,০৮৫
  • সুনামগঞ্জ ১,০৬২
  • রংপুর ৯৮৩
  • লক্ষ্মীপুর ৯৭৬
  • ফেনী ৮৯২
  • টাঙ্গাইল ৮৫২
  • মাদারীপুর ৮৩২
  • গোপালগঞ্জ ৭৯৯
  • হবিগঞ্জ ৭৫৮
  • যশোর ৭৪৮
  • কুষ্টিয়া ৭০৮
  • দিনাজপুর ৬৭৫
  • শরীয়তপুর ৬৬৮
  • জামালপুর ৬৪৮
  • মানিকগঞ্জ ৬৩১
  • সিরাজগঞ্জ ৬২৭
  • পটুয়াখালী ৬০৬
  • রাজবাড়ী ৫৬৩
  • নওগাঁ ৫৫৯
  • নেত্রকোণা ৫৪৪
  • পাবনা ৪৭৪
  • জয়পুরহাট ৪৫৪
  • মৌলভীবাজার ৪১৪
  • রাঙ্গামাটি ৩৮৫
  • ভোলা ৩৬২
  • নীলফামারী ৩৫৩
  • বরগুনা ৩৫৩
  • বান্দরবান ৩১২
  • গাইবান্ধা ২৮৮
  • নড়াইল ২৭৭
  • ঝিনাইদহ ২৭৭
  • শেরপুর ২৫৪
  • নাটোর ২৪৪
  • ঝালকাঠি ২৪২
  • চুয়াডাঙ্গা ২৩৯
  • খাগড়াছড়ি ২৩৭
  • পিরোজপুর ২১৮
  • ঠাকুরগাঁও ২০৬
  • বাগেরহাট ২০০
  • সাতক্ষীরা ২০০
  • মাগুরা ১৬৯
  • কুড়িগ্রাম ১৪৯
  • পঞ্চগড় ১৪৬
  • লালমনিরহাট ১২৬
  • চাঁপাইনবাবগঞ্জ ১০১
  • মেহেরপুর ৯২
ন্যাশনাল কল সেন্টার ৩৩৩ | স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ | আইইডিসিআর ১০৬৫৫ | বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন ০৯৬১১৬৭৭৭৭৭ | সূত্র - আইইডিসিআর | আপডেট - বিডি রাইট ডট কম
জানা গেল রহস্য, যেভাবে পানির মধ্যে ১৩ ঘণ্টা কেটেছে সুমন বেপারীর

জানা গেল রহস্য, যেভাবে পানির মধ্যে ১৩ ঘণ্টা কেটেছে সুমন বেপারীর

’লঞ্চটি তলিয়ে যাওয়ার সময় দেখি আমিও তলিয়ে যাচ্ছি। লঞ্চের যে জায়গাটিতে আটকে ছিলাম, সেখানে একটি রড ও ফোম ধরে রেখে লঞ্চের ভেতরে দাঁড়াতে পেরেছি। সেখানে আমি দুবার প্রস্রাব করেছি এবং ওজু করেছি। কিন্তু চেষ্টা করিনি লঞ্চের ভেতর থেকে বের হওয়ার। চেষ্টা করলে হয়তো আমি এখন বেঁচে থাকতাম না।’ বুড়িগঙ্গায় লঞ্চডুবির ১৩ ঘণ্টা পর জীবিত উদ্ধার হওয়া মো. সুমন বেপারী এসব কথা বলেন।

 

তিনি বলেন, মর্নিং বার্ড লঞ্চের ইঞ্জিনরুমের সঙ্গে থাকা এক কক্ষে আটকে ছিলাম। আল্লাহ আমাকে বাঁচিয়ে রেখেছে বলেই আমি সেখানে ফোম ও রড ধরে লঞ্চের ভিতরে দাঁড়াতে পেরেছি। সেখানে ওজু করে দোয়া দরূদ পড়েছি। লঞ্চটি যখন তলিয়ে যায়, দেখি আমিও তলাইয়া যাইতাছি।’

 

লঞ্চডুবির ১৩ ঘণ্টা পর জীবিত উদ্ধারের পর কোস্টগার্ড ও নেভির কর্মকর্তারা বিভিন্ন প্রশ্ন করলে সুমন বেপারী চোখের ইশারায় কথার জবাব দেওয়ার চেষ্টা করেন। দীর্ঘ সময় পানির নিচে আটকে থাকায় তার শরীরের তাপমাত্রা নেমে গিয়েছিল। পানির নিচে তলিয়ে গেলেও সুমন বেপারী কিভাবে দীর্ঘ সময় বেঁচে ছিলেন- এ নিয়েই সোমবার রাত থেকে মঙ্গলবার দিনভর নানা জল্পনা-কল্পনা চলছিল।

মঙ্গলবার ফল ব্যবসায়ী সুমন বেপারী সুস্থ হয়ে উঠলে তাকে মিডফোর্ড হাসপাতালের সাধারণ ওয়ার্ডে নেওয়া হয়। মঙ্গলবার পরিবারের স্বজনরা তার কাছে আসেন।

খবরটি শেয়ার করুন




© ২০২০ | বিডি রাইট কর্তৃক সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত
Design BY NewsTheme